লালনগীতির ব্যাখ্যা – এক ফুলে চার রং ধরেছে

‘এক ফুলে চার রং ধরেছে’ গানটিতে লালন দেহতত্ত্ব ও নবীতত্ত্বের সংমিশ্রণ ঘটিয়েছেন। এই গানের বিষয়বস্তু ‘ফুল’। তবে সে ফুল সাধারণ ফুল নয়, নূরের ফুল। তিনি নারীর ডিম্বকে রূপক অর্থে ‘ফুল’ বলেছেন।

“এক ফুলে চার রং ধরেছে

ও সে ভাব নগর ফুলে

কি আজব শোভা করেছে।।”

লালনগীতির ব্যাখ্যা – ঋতুকালে নিঃসৃত ডিম্বে নারীগর্ভ সৃষ্টির নেশায় অপরূপ সাজে সেজেছে।

‘চার রং’ – বাউলতত্ত্ব মতে, ঋতুকালের প্রথম চার দিনের রজঃস্রাবের চার রং- কালো, সাদা, লাল ও হলুদ।

‘ভাবনগর’ – নারীগর্ভ

অধিকন্তু, এই চার রং মানবদেহের চার রেচন (‘চারি চন্দ্র’)- মল, বীর্য, রক্ত ও মূত্র;

অথবা, পৃথিবী সৃষ্টির চার উপাদান (মাটি, বায়ু, আগুন ও পানি);

অথবা, সুফিবাদের চার প্রধান তরিকা (কাদেরিয়া, চিশতিয়া, নকশবন্দিয়া ও মুজাদ্দিদিয়া) নির্দেশ করে।

মূল ছাড়া সে ফুলের লতা

ডাল ছাড়া তার আছে পাতা

এ বড় অকৈতব কথা

কে পেতাবে কই কার কাছে।।

লালনগীতির ব্যাখ্যা – নারীর ডিম্বের অবয়বের চিত্রকল্প। তিনি কার কাছে এ সত্য তুলে ধরবেন? কে তাকে বিশ্বাস করবে? ‘অকৈতব’ – বলা যায় না এমন সত্য ‘কে পেতাবে’ – কে বিশ্বাস করব

কারণ বারির মধ্যে সে ফুল

ভেসে বেড়ায় একূল ওকূল

শ্বেত বরণ এক ভ্রমর ব্যাকুল

সে ফুলের মধুর আশে।।

লালনগীতির ব্যাখ্যা – নারীর ডিম্ব যখন নারীগর্ভ জুড়ে ঘুরে বেড়ায়, তখন পুরুষের বীর্য সে নারীর ডিম্বের সাথে মিলনের আকাঙ্ক্ষায় ব্যাকুল হয়ে ওঠে।

‘শ্বেত বরণ ভ্রমর’ – পুরুষের বীর্য

ডুবে দেখ মন দেল দরিয়ায়

যে ফুলে নবির জনম হয়

সে ফুল তো সামান্য ফুল নয়

লালন কয় যার মূল নাই দেশে।।

লালনগীতির ব্যাখ্যা – এ স্তবকে গানটির মূল কথা বলা হয়েছে। নারীর ডিম্ব কোনো সাধারণ ফুল নয়। এ ‘ফুল’ নূরের ফুল। পৃথিবীতে একে খুঁজে পাওয়া যাবে না। আল্লাহর নির্দেশে সে নূর পিতা আব্দুল্লাহ থেকে মা আমিনার গর্ভে সঞ্চারিত হয়েছিল। নূরের সেই ফুলে মহানবী (সাঃ) জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

গানটির ভিডিও ও ইংরেজি অনুবাদ দেখতে নিচের লিঙ্কে ক্লিক করুন-

শেয়ার করুন